সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ২, ২০১৭ তারিখে ৯:২৮ অপরাহ্ণ
আজ : ১৯শে আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

আমার কুষ্টিয়া

admin | ডিসেম্বর ২৯, ২০০৭, ১:৫৬ পূর্বাহ্ণ
Domain

কুষ্টিয়া অতীতে অবিভক্ত ভারতের নদীয়া জেলার অংশ ছিলো। কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা এবং মেহেরপুর নিয়ে ১৯৪৭ সালে নতুন জেলার গঠিত হয়। বর্তমানে চুয়াডাঙ্গা এবং মেহেরপুর আলাদা আলাদা জেলা। কুষ্টিয়া জেলাতে ৭টি থানা (কুষ্টিয়া সদর, কুমারখালী, দৌলতপুর, মীরপুর, ভেড়ামারা, খোকসা এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়), ৪টি পৌরসভা, ৬১টি ইউনিয়ন, ৭১০ মৌজা এবং ৯৭৮টি গ্রাম রয়েছে।
দর্শনীয় স্খান: কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের কুঠিবাড়ী, লালন শাহের মাযার, মীর মশাররফ হোসেনের বাস্তিভটা, নফর শাহের মাযার, দরবেশ সোনা বন্ধুর মাযার, জঙ্গলী শাহের মাযার, মহিষকুন্ডি নীলকুঠি, কালীদেবী মন্দির ইত্যাদি। এছাড়াও ১০টি গণকবর, ১১টি স্মৃতিস্তম্ভ এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে স্মারক ভাস্কর্য ‘মুক্তবাংলা’।
১৮৬০ সালে বাংলাদেশ নীলবিদ্রোহ ব্যাপকতা লাভ করে এবং কুষ্টিয়া জেলার শালঘর মধুঘর নীলবিদ্রোহ ছিল বৃহত্তম ঘটনা। এ সময় কুষ্টিয়া জেলার সকল নীলচাষি সরকারের খাজনা দেয়া বন্ধ করে দেয়। এ ঘটনা তদন্তের জন্য ইংবেজী সরকার জি.জি মরিসন নামক একজন কর্মকর্তার নেতৃত্বে একদল সৈন্যকে সেখানে পাঠায়। এ অঞ্চলে কৃষকরা তাকে জানায় যে নীল করেরা তাদের জুলুম বন্ধ করলে তবেই তারা সরকারকে খাজনা দিতে রাজী থাকবে। মরিসন এই শর্তে রাজি হলে সৈন্যদলটি কলকাতায় ফিরে যায়।

১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন